Akhi alongir nude

Rated 3.82/5 based on 907 customer reviews

” আমি চেয়ারে বসতে বসতে সপ্না কে বললাম। ও তখন কি একটা আনতে কিচেনে গিয়েছিল। এসে আমার পাশে দাঁড়িয়ে একটা দুষ্ট হাসি হেসে বলল, “কেন আমার হবু বর?

”–না,না, আমি এত গুলা খেতে পারবো না। আমি শুধু কাস্টার্ডটা আর নুডুলসটা খাবো।–ঠিক আছে,আগে শুরু কর না। বাকিটুকু পরে দেখা যাবে।খেতে খেতে জানলাম আংকেল বাসাতে আসবেন পনের দিন পর। এই কয়দিন ও বাসাতে একাই। আরও জানলাম আমাকে ওর সাথে প্রায় দুইদিন আর তিন রাত থাকতে হইতেছে।সন্ধ্যায় আমি সপ্নার রুমে খাটে শুয়ে শুয়ে টিভি দেখছিলাম। ও কিচেনে রাতের খাবার বানাচ্ছিল। ওর রুমটা অনেক সুন্দর করে সাজানো গুছানো। দেখেই বুঝা যায় একটা মেয়ের রুম। ডাবল বেডের বক্স খাট। খাটটা আবার অনেক নরম ছিল। শুইলে পুরা শরীর ঢুকে যায়। বিছানার সামনে একটা সিঙ্গেল কাউচ রাখা। সেটার পাশে আবার একটা হোম থিয়েটার। দেয়ালে রেক্টিংগুলার প্লাজমা টিভি। ২৭ ইঞ্চি হবে মনে হয়। তখনও এই গুলা আমাগো দেশে খুব প্রচলিত ছিল না। আংকেল মাঝে মাঝে বিদেশ গেলে নিয়ে আসতেন । ওর রুমের ডান দিকে মানে পূর্ব দিকে একটা বড় ব্যলকনি ছিল আর থাই গ্লাসের বিশাল জানালা। ওদের ফ্ল্যাটটার সবচেয়ে সুন্দর রুম মনে হয় সপ্নারটাই। রুমের ডিস্টেম্বারের সাথে ম্যাচ করে হালকা গোলাপি রঙের পর্দা লাগান হয়েছিল জানালাতে। পর্দা গুলা আবার খুব মোটা। বিছানার চাদরও হালকা গোলাপি কালারের ছিল। একটা এ.সি ও লাগানো হয়েছিল। যেটাকে ওর রুমে কিছুটা বেমানান লাগছিল । ব্যলকনি,জানালার পর এ.সি’র কোন দরকারই ছিল না। হয়ত ওটাও একটা বিলাসিতা ছিল।একটু পর ও এসে বলল, “বুজলা, বাসাতে বুয়া নাই। এজন্য সবকিছু নিজের হাতেই করতে হইতেছে। তোমারে সময় দিতে পারতেছি না।” আমি কিন্তু bore হইতেছিলাম না। তারপর বলল, “চা খাবা নাকি কফি?

” ও পাল্টা প্রশ্ন করলো।–“It’s up to you.” আমি সিম্পলি বললাম। “তোমার দেখাতে ইচ্ছা করলে দেখাবা,দেখব। আর না দেখাতে ইচ্ছা করলে দেখাইয়ো না। সমস্যা নাই।”–তাহলে তো তোমার দেখার কোন ইচ্ছাই নাই। কোন মেয়ে কি ইচ্ছা করে নিজেকে তার বয়ফ্রেন্ড এর সামনে Nude করে নাকি? ” ও হেসে বলল, “এটা হল জেল। লুব্রেকেটিং অয়েল। ছোট্ট রিফাতের জন্যে।” ও খাটের উপর উঠে আমার দুপায়ের মাঝে বসে অয়েলটা আমার বাড়াতে মাখিয়ে দিতে লাগল। মাখাতে মাখাতে বলল, “তোমার বাড়ার লোমগুলা কাটতে পারো না?

”আমি পড়ে গেলাম লজ্জায়। একটু বেশিই বড় হয়ে গিয়েছিল। গত চার পাঁচ সপ্তাহ ধরে কাটতে পারি নাই। বললাম, “সময় পাচ্ছি না।”–থাক আর সময় পেতেও হবে না। আমি নিজেই কেটে দিব।আমি কিছুই বললাম না। ও আমার বাড়াতে তেল মাখিয়ে খেঁচতে লাগলো। কেমন করে যেন খেঁচতেছিল। আমি কখনও Hand job এ এত মজা পাই নাই। ওর চোখ মুখেও একটা কামার্ত ভাব ছিল। তারপর আমি চোখ বন্ধ করে পুরো ব্যাপারটা অনুভব করতে লাগলাম। একটু পর ও বলল, “Would you like to give your dick into my mouth?

About this video Akhi Alamgir told that she did not have any nude videos till today. Media have found real news, which is right and which is wrong!

সেদিন সকালে আমার ঘুম ভেঙ্গেছিল সকাল সাড়ে আটটায়। আমার যতটুকু মনে পড়ে হলের জীবনে আমি কোনদিন একটু শান্তি মত ঘুমাইতে পারি নাই। ন’টার বেশি তো কোন দিনই না। ঐদিন এমনিতেই বাহিরে কি একটা বিষয় নিয়ে পোলাপাইন বেশ হাউকাউ লাগাইছিল। তারপর উপর রুমের দরজাটাও খোলা ছিল। আবার এদিকে ছিল রুমের ছোট ভাইটার অত্যাচার। ও তখন ফার্স্ট ইয়ারে ছিল । যতক্ষণ সে রুমে থাকত ততক্ষণ ঘটঘট করে পড়ত । পুরা রুম ফাটায় ফালাইত। কত বুঝাইছি ওরে, “ভাইয়া, একটু আস্তে আস্তে পড়।” কিন্তু কার কথা কে শুনে। ওর নাকি জোরে জোরে না পড়লে পড়া মুখস্ত হয় না। আরে ভাই আমরা কি পড়ি নাই?

”আমি বললাম, “চা ই দাও। Deep sugar with light liquor.”–“ঠিক আছে,আমি আনতেছি। তারপর দুইজনে মিলে গল্প করবো।” এই বলে ও চা আনতে গেল।আমি স্পোর্টস চ্যানেল গুলা খুজতেছিলাম। HBO Cross করার সময় দেখলাম, টাইটানিক দেখাইতেছে। আমি HBO তে একটু hold করছিলাম। ঠিক ঐ মুহূর্তে সপ্না চা এর মগ হাতে এসে ঢুকল। টিভিতে চোখ দিয়েই চিৎকার করে হাত নাড়তে নাড়তে বাচ্চা মেয়েদের মত বলে উঠল, “টাইটানিক, টাইটানিক আমি দেখবো, আমি দেখবো।” তার হাতে যে চা আছে সেটার কথা সে একদমই ভুলে গেল। ফলে যা হবার তাই হল। খানিকটা চা পড়ে গেল নিচে।চা খাওয়া হলে আমরা দুইজন এক কাঁথার নিচে লাইট নিভিয়ে জড়াজড়ি করে মুভিটা দেখলাম। কাঁথাটা কিভাবে আসল সেটা একটু বলি। মুভিটা দেখার জন্য নাকি খুব রোমান্টিক পরিবেশ লাগে। সপ্নার কথা। তাই সে তখন এ.সি’তে রুম টেম্পারেচার ২০ ডিগ্রী তে সেট করে দিল। ওর বক্স খাটের ড্রয়ার থেকে একটা কাঁথা বের করে গায়ে দিয়ে আমাকে জড়িয়ে পুরো মুভিটা শেষ করল। আমিও খুব এনজয় করেছিলাম মুভিটা। টাইটানিক আগেও দেখছি এই ঘটনার পরেও দেখছি। কিন্তু ঐ বারের মত মজা পাই নাই।মুভিটা শেষ করে সাড়ে ন’টার দিকে আমরা খেতে বসলাম। ও কাচ্চি বিরানী রান্না করছিল । অনেক মজা হয়েছিল। খেয়েছিলামও প্রচুর। সপ্না কথায় কথায় বলল ওর আব্বু নাকি রেড সেভেন এনেছে। আর সেটা তখন ওদের ফ্রিজেই ছিল। আমি শুনে তো খুশি। যাক অনেক দিন পরে খাওয়া যাবে। খাওয়া শেষ করে আমরা ফ্রিজ থেকে ওয়াইনের বোটল আর গ্লাস নিয়ে সপ্নার বেডরুমে গিয়ে বসলাম। দুজন মিলে গল্প করছিলাম। তখন বাজে সাড়ে দশটার মত। হঠাৎ কথা উঠল সেক্স নিয়ে ।–আচ্ছা,রিশাত,তুমি কি পর্ণোমুভি দেখ?

Akhi alongir nude-65

Akhi alongir nude-70

Akhi alongir nude-9

Akhi alongir nude-80

It is said that the video was recorded in the drawing room or the living room of a house in the elite . Young people are searching it In Google search and it is widely available in recent times .

”আমি ওকে কি উত্তর দিব বুজতেছিলাম। কারণ আমার মনে হচ্ছিল হাত দিয়েই বেশি মজা লাগবে। মুখ দিয়ে চুষলে মাল বের হতে চাইলেও ফেলতে পারবো না। এই কথা গুলা আমি ওকে বললাম। ও সাথে সাথে আমার দ্বিধা ভেঙে দিয়ে বলল, “কোন সমস্যা নাই। মাল বের হলে আমার মুখে ফেলে দিয়ো। মাইন্ড করবো না। তুমি শুধু একটু খাটে পা ঝুলিয়ে শোও।” আমি ওর কথা মত খাটের দৈর্ঘ্য বরাবর হাঁটু থেকে পা ঝুলিয়ে শুয়ে রইলাম। ও নিচে হাঁটু গেড়ে আমার বাড়া চুষছিল। সত্যি বলছি আমার তখন মনে হচ্ছিল দুনিয়াতে আমার আর কিছুই দরকার নাই। যা পাবার তা আমি পেয়ে গেছি। অ-নে-ক মজা পাচ্ছিলাম। ও প্রায় পনেরো মিনিট ধরে ছোট্ট রিশাতকে নিয়ে খেলছিল। আমার মালও প্রায় বের হয়ে এসেছিল। কিছুক্ষণ পর টের পেলাম আমার বাড়া প্রায় ফেটে যাচ্ছে। আর ওদিকে ও চুষেই যাচ্ছিলো। মাল না ফেলা ছাড়া কোন উপায় ছিল না। যদিও ও অভয় দিয়েছিল কিন্তু আমার কাছে সংকোচ লাগছিল ওর মুখে মাল ফেলতে। একটু পর অবশ্য এসব চিন্তার অবকাশও পেলাম না। মাল বের হয়ে গেল। ও মাল পড়ার পরও কিছুক্ষণ চুষলো। সব মাল বের হয়ে যাবার পর ও ওয়াশরুমে গিয়ে কুলি করে আসলো। আমার খুব ক্লান্ত লাগছিল। বিয়ের আগে মাল ফেললে আমার মাঝে কেমন যেন একটা ক্লান্তি আর অপরাধবোধ কাজ করত। এটার কারণ আমি জানি না। তবুও লাগত। কিন্তু সেইবার আমার অপরাধবোধটা ছিল না।ও এসে বলল, “তুমি আজকে অনেক Excited ছিলা,না?

–হুম। তোমাকে অন্য এঙ্গেল থেকে আজকে দেখলাম তো,তাই।আমার পাশে শুতে শুতে ও একটু হেসে বলল, “কোন এঙ্গেল থেকে?

”–Obviously সেক্সের এঙ্গেল থেকে।মাল ছাড়ার কিছুক্ষণ পর,এই দশ পনের মিনিট পর আমার বাড়াটা সবসময় প্রমান সাইজ থেকে একটু বেশিই ছোট হয়ে যায়। লম্বায় কানি আঙ্গুলটার মত হয়ে যায়। কথা বলতে বলতে ও আমার বাড়াতে হাত দিল। দিয়েই চমকে শোয়া থেকে উঠে বসে পড়লো। চোখ বড় বড় করে বলল, “তোমার বাড়াটা এত ছোট হয়েছে কিভাবে?

”আমি হেসে বললাম, “মাল ছাড়ার পর এটা একটু ছোট হয়ে যায়।”ও হাসতে হাসতে বলল, “খুবই মজার জিনিস তো। একটু আগেও আমি দেখলাম প্রায় ছয় ইঞ্চির একটা এত বড় একটা জিনিস। সেটা এখন মাত্র আড়াই ইঞ্চি হয়ে গেল?

Leave a Reply